ধুনটে গোপাল ঠাকুরের মুর্তি উদ্ধার

59

এম.এ. রাশেদ (বগুড়া) প্রতিনিধি:বগুড়ার ধুনটে নদী থেকে পাওয়া একটি গোপাল ঠাকুরের মুর্তি উদ্ধার করেছে থানা পুলিশ। শুক্রবার সকালে উপজেলার সদর ইউনিয়নের বিলকাজুলী গ্রামের পাকনিপাড়া এলাকার বাঁশশিল্প কারিগরের শ্রী বৌদ্ধ নাথ দাসের বাড়ি থেকে এ মুর্তি উদ্ধার করা হয়।স্থানীয় সুত্রে জানা যায়, পাকনিপাড়া এলাকার শ্রী বৌদ্ধ নাথ দাসের ছোট মেয়ে রুপা রানী দাস প্রতিদিনের ন্যায় পাশ্ববর্তি বাঙ্গালী নদীতে গোসল করতে যায়। ঘটনার দিন নদীতে গোসল করতে নেমে পানির নিচ থেকে সনাতন ধর্মালম্বীদের পূজনীয় একটি গোপাল ঠাকুরের সোনালী রঙের মর্তি পেয়ে বাড়িতে নিয়ে আসে রুপা রানী । শ্রী বৌদ্ধ নাথ দাস ও শ্রীমতি রঞ্জনা রানী দাসের পরিবারে ছেলে সন্তার না থাকায় তৎক্ষতি তারা গোপাল ঠাকুরের মুর্তিকে ভক্তি শ্রদ্ধা শুরু করে।

ধীরে ধীরে এলাকায় প্রচার হতে থাকে বৌদ্ধ নাথ দাসের মেয়ে রুপা রানী একটি সোনার তৈরী গোপাল ঠাকুরের মুর্তি পেয়েছে। কেউ বলছে কষ্টি পাথরের মুর্তি পেয়েছে। এসব নিয়ে এলাকায় নানা গুঞ্জন সৃষ্টি হয়। পরে খবর পেয়ে ধুনট থানার অফিসার ইনচার্জ ইসমাইল হোসেন সঙ্গিয় ফোর্স এসআই শাহীনুর রহমানকে নিয়ে ঘটনা স্থান পরিদর্শন করেন এবং শ্রী বৌদ্ধ নাথ দাসের বাড়ি থেকে উদ্ধারের পর মুর্তিটি জব্দ করে।ধুনট থানার অফিসার ইনচার্জ ইসমাইল হোসেন জানান, আমরা সোনালী রঙের একটি গোপাল ঠাকুরের মুর্তি জব্দ করে নিয়ে এসেছি। থানায় জিডি করার পর, বগুড়া প্রত্নীতলা অধিদপ্তরের মাধ্যমে মুর্তিটি যাচাই করে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেবো।