টেলিগ্রাম কি এবং টেলিগ্রাম থেকে ইনকাম করার সহজ উপায়

টেলিগ্রাম কি এবং টেলিগ্রাম থেকে ইনকাম

5

বর্তমান সারা বিশ্বের সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম বলতে, ফেসবুক, ফেসবুক মেসেঞ্জার, হোয়াটসঅ্যাপ, ইমো এবং ইনস্টাগ্রাম এর পাশাপাশি টেলিগ্রাম যোগাযোগ মাধ্যম টিও বেশ জনপ্রিয় হয়ে উঠেছে। কিন্তু আমরা অনেকেই জানিনা টেলিগ্রাম কি ? অথচ ফেসবুক, হোয়াটসঅ্যাপ এর মত ব্যবহারকারী না থাকলেও খুব তাড়াতাড়ি এদের স্থান দখল করে নেবে। এটিও ফেসবুক, হোয়াটসঅ্যাপ এর মত সামাজিক যোগাযোগ অনলাইন মাধ্যম। আর এই অনলাইন মাধ্যম থেকে টাকা ইনকাম করার বিষয় একটি জনপ্রিয় ব্যাপার। অনেকে আছে ইউটিউব, ব্লগিং, ফেসবুক যেগুলোর মাধ্যমে টাকা ইনকাম করে থাকে। তেমনি এই প্ল্যাটফর্ম গুলোর সাথে সাথে টেলিগ্রাম থেকে ইনকাম করা যেতে পারে। মোট কথা, একটি টেলিগ্রাম চ্যানেল তৈরী করে টাকা ইনকাম করা সম্ভব। তাহলে চলুন শুরু করা যাক টেলিগ্রাম কি এবং টেলিগ্রাম থেকে কিভাবে টাকা ইনকাম করা যায় সে সম্পর্কে বিস্তারিত আলোচনা।

টেলিগ্রাম কি

আমাদের আলোচনার বিষয়বস্তু হচ্ছে টেলিগ্রাম কি এবং কিভাবে টেলিগ্রাম থেকে ইনকাম করা যায় সে সম্পর্কে। তাই প্রথমেই আপনাদের জানতে হবে টেলিগ্রাম কি তা সম্পর্কে। টেলিগ্রাম হচ্ছে একটি অনলাইন মাধ্যম। আর এই মাধ্যম টি এত তারাতারি জনপ্রিয় হয়ে উঠেছে তার একমাত্র কারন এর ফিচার সুরুক্ষার জন্য।

এর গুরুত্বপূর্ণ জনপ্রিয় ফিচারটি হলো, এর মাধ্যমে কোন বার্তায় যদি ভুল থাকে তা আবার এডিট করা যায়। তবে ভুল বানান বা শব্দটি সঠিক করে পুনরায় আবার পাঠানো লাগে না। কেননা, এর ফিচারটি বার্তা পাঠানোর সাথে সাথে কাজ করে থাকে। টেলিগ্রাম লো এন্ড ডিভাইসেও সাবলীল ভাবে কাজ করতে পারে।

আপনি আরো জানতে পারবেন টেলিগ্রাম এর ইন্টারফেস ইউজার ফ্রেন্ডলী কি না। আমি বলবো হ্যা! আপনি চাইলেই নিজের পছন্দ মত এর ইন্টারফেস সাজিয়ে নিতে পারবেন। এর নরমাল মোড, ডার্ক মোড ফিচারের পাশাপাশি ব্যবহারকারী গণ অপশন গুলোর রং পরিবর্তন করতে পারবেন।

টেলিগ্রাম অন্যান্য প্ল্যাটফর্ম গুলোর মত ইন্সট্যান্ট মেসেজিং প্ল্যাটফর্ম কি না। অবশ্যই টেলিগ্রাম অন্যান্য প্ল্যাটফর্ম গুলোর মতই মেসেজ ডেলিভারী দিয়ে থাকে। এটি দূর্বল গতির ইন্টারনেট দিয়েও দ্রুত টেক্সট ডেলিভারী দেওয়া যায়। তবে এর ভয়েস কলিং কোয়ালিটিও অন্যান্য মাধ্যম গুলোর তুলনায় অনেক ভালো। টেলিগ্রাম এর ভিডিও কলিং এর ফিচার ডেভেলপ হচ্ছে।

এর আরেক টি গুরুত্বপূর্ণ ফিচার হচ্ছে ফাইল শেয়ারিং। টেলিগ্রাম এ দুই জিবি পর্যন্ত ফাইল শেয়ার করা যায়। অর্থ্যাৎ টেলিগ্রাম ব্যবহারকারী দুই জিবি পর্যন্ত কোন ফাইল ইন্সট্যান্ট মেসেজের মাধ্যমে পাঠাতে পারবেন। এর জন্য আলাদা করে গুগল ড্রাইভ বা ড্রপবক্স এ স্টোরেজ করে লিংক শেয়ারের কোন প্রয়োজন পরবে না।

প্রাইভেসি সিকিউরিটি

টেলিগ্রাম এর আরো একটি আশ্চার্য ফিচার হচ্ছে এর প্রাইভেসি সিকিউরিটি কি এবং কেমন। টেলিগ্রাম এর প্রাইভেসি সিকিউরিটি অন্যান্য মাধ্যম গুলোর তুলনায় অনেক এগিয়ে। কেননা, এটি সরাসরি ক্লায়েন্ট এনক্রিপশন ব্যবহার করে বার্তা পাঠানোর কাজ করে। যার ফলে টেলিগ্রাম ব্যবহারকারীদের মাঝ থেকে ফাইল হ্যাক হওয়ার সম্ভাবনা নেই বললেই চলে।

টেলিগ্রাম ব্যবহারকারীরা যে বার্তা টি মেসেজ বক্সে লিখে সেটি একটি কোড আকারে প্রেরিত হয়। আর যার কাছে পাঠানো হয় তার ডিভাইসে সেটি স্বয়ংক্রিয়ভাবে ডিকোড হয়ে যায়। এছাড়া ফেসবুক মেসেঞ্জারের মত টেলিগ্রাম এ সিক্রেট চ্যাট অপশন তো থাকছেই।

বন্ধুরা, উপরের উল্লেখিত আলোচনা টি ছিল টেলিগ্রাম কি সে সম্পর্কে। আর এখন আমরা আলোচনা করবো টেলিগ্রাম থেকে কিভাবে ইনকাম করা যায় তা সম্পর্কে। নিম্নে টেলিগ্রাম থেকে কিভাবে টাকা ইনকাম করা যায় তা আলোচনা করা হলো।

টেলিগ্রাম থেকে ইনকাম

কি কি উপায়ে টেলিগ্রাম থেকে টাকা ইনকাম করা যায় পয়েন্ট আকারে তুলে ধরা হলো-

  • অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিং (Affiliate Mraketing).
  • প্রোডাক্ট রিসেলিং ( Product Reselling).
  • পেইড প্রমোশন (Paid Promotion).
  • পেইড মেম্বারশিপ (Paid Membership).
  • লিংক শর্টনার (Url Shortener).
  • রেফারেল লিংক (Refarel link).

১। টেলিগ্রাম অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিং (Affiliate Mraketing) করে

অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিং এমন একটি বাজার যেখানে কোন পণ্য বা সার্ভিস আপনার মাধ্যমে ক্রয় করা। যেখানে আপনার লিংকের মাধ্যমে কেউ যদি কোন পন্য বা সার্ভিস নেয়। তাহলে কোম্পানি আপনাকে সেই পণ্যের উপর ভিত্তি করে কমিশন দিবে, আর সহজ ভাষায় এটাই হলো অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিং।

এছাড়া বর্তমানে অনলাইনে আয়ের অন্যতম উপায় হচ্ছে এই অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিং। কেননা, এই অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিং করতে কোন প্রকার ইনভেস্ট বা টাকার প্রয়োজন হয় না।

এর জন্য আপনার চ্যানেলে ৪-৫ হাজার মানুষ হলে আপনি খুব সহজেই অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিং করতে পারবেন। আর আপনার টেলিগ্রাম চ্যানেলের নিশের সাথে মিল রেখে পণ্য বা সার্ভিসের মাধ্যমে অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিং থেকে টাকা ইনকাম করতে পারবেন। অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিং এর জনপ্রিয় তিনটি প্রোগ্রাম হলো।

  • Amazon
  • Flipcart
  • eBay

আপনি চাইলেই এসব ই-কমার্স সাইটে গিয়ে অ্যাফিলিয়েট প্রোফাইল ওপেন করে তাদের পণ্যের অ্যাফিলিয়েট লিংক আপনার টেলিগ্রাম চ্যানেলে দিয়ে সেখান থেকে টাকা ইনকাম করতে পারবেন।

২। টেলিগ্রাম প্রোডাক্ট রিসেলিং ( Product Reselling) করে

প্রোডাক্ট রিসেলিং (Reselling) অনেকটাই অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিং এর মতোই। এর মানে হচ্ছে পণ্য রিসেলিং অর্থাৎ পুনরায় বিক্রি। অনলাইনে এরকম অনেক অ্যাপ ও ওয়েবসাইট আছে যাদের পণ্য আপনি রিসেলিং করতে পারবেন। তবে চাইলেই আপনি বাংলাদেশী দুই টি সাইট থেকে পণ্য রিসেলিং করতে পারেন তা হলো, আজকের ডিল এবং শপ আপ।

প্রথমেই আপনাকে পণ্য রিসেলিং করার জন্য রিসেলার একাউন্ট খুলতে হবে। এরপর পণ্যের লিংক আপনার টেলিগ্রাম এ শেয়ার করতে হবে। আর সেখান থেকে কেউ পন্য ক্রয় করলে আপনি কমিশন পাবেন। এভাবেই আপনি টেলিগ্রাম থেকে ইনকাম করতে পারবেন।

৩। টেলিগ্রাম পেইড প্রমোশন (Paid Promotion) করে

পেইড প্রমোশন যা টাকার বিনিময়ে পন্যের মার্কেটিং করা। যা ডিজিটাল মার্কেটিং এর সাথে জরিত। বর্তমানে প্রায় কোম্পানি তাদের পন্য এই ডিজিটাল মার্কেটিং এর মাধ্যমে করে থাকে। আপনারা লক্ষ্য করেন, যখন ইউটিউবে ভিডিও দেখার সময় কন্টেন্ট ক্রিয়েটরেরা ভিডিওর মধ্যে বিভিন্ন পণ্য বা কোম্পানির বিজ্ঞাপন করে দিচ্ছে আমরা যেটাকে বলি স্পন্সর।

আর এই স্পন্সর মূলত পেইড প্রমোশন। অর্থাৎ আপনার ভালো ফ্যান ফলোয়ার বা কমিউনিটি থাকার কারনে কোম্পানি আপনার মাধ্যমে তাদের পণ্যের প্রচার করে নিচ্ছে। আর এর জন্য আপনাকে ভালো এমাউন্ট দিচ্ছে। এভাবেও আপনি আপনার টেলিগ্রাম চ্যানেল থেকে পেইড প্রমোশন করে টাকা ইনকাম করতে পারেন।

৪। টেলিগ্রাম পেইড মেম্বারশিপ (Paid Membership) করে

পেইড মেম্বারশিপ করেও টেলিগ্রাম থেকে টাকা ইনকাম করা যায়। এর জন্য আপনি আপনার টেলিগ্রাম চ্যানেলে প্রিমিয়াম কনটেন্ট দিয়ে পেইড মেম্বারশিপ সিস্টেম চালু করতে পারবেন। এ সিস্টেমে আপনার টেলিগ্রাম চ্যানেলে কেউ মেম্বার হতে চাইলে টাকা দিয়ে তাকে মেম্বার হতে হবে।

তবে এক্ষেত্রে আপনার চ্যানেলটি অবশ্যই প্রাইভেট হতে হবে। সেই সাথে চ্যানেলে প্রিমিয়াম ও আকর্ষণীয় কনটেন্ট শেয়ার করতে হবে। যে কেউ নির্দিষ্ট চার্জ পরিশোধ করলেই আপনার চ্যানেলে মেম্বার হতে পারবে ও কনটেন্ট দেখতে পারবে। এভাবে পেইড মেম্বারশিপ করে খুব সহজেই ভালো পরিমান ইনকাম করা যায়।

টেলিগ্রাম কি এবং টেলিগ্রাম থেকে ইনকাম করার সহজ উপায়

৫। টেলিগ্রাম লিংক শর্টনার (Url Shortener) করে

অনলাইনে এমন অনেক ওয়েবসাইট আছে যেখানে লিংক শর্টনার করে আয় করা যায়। এখানে শর্ট করা লিংকে ক্লিক করলে মেইন কনটেন্ট দেখানোর আগে ভিজিটরকে এডস দেখায়। আর এটাই হচ্ছে লিংক শর্টনার করে আয়। নিচে কয়েক টি লিংক শর্টনার ওয়েবসাইট তুলে ধরা হলো।

  • Adf.ly
  • ouo.io
  • Shorte.st
  • Adyou.me
  • Al.ly
  • Victly.com

এসব ওয়েবসাইটে প্রথমে আপনাকে পাবলিসার একাউন্ট করে নিতে হবে। তারপর আপনার টেলিগ্রাম চ্যানেলে যে কনটেন্ট গুলো রয়েছে সে গুলোতে লিংক শর্টনার করে দিতে হবে। এ ধরনের ওয়েবসাইটে বেশিরভাগই ১০০০ ক্লিকে ১/২ ডলার দিয়ে থাকে। আপনার টেলিগ্রাম চ্যানেলে যদি ৫-৬ হাজার মেম্বার থাকে তাহলে আপনি খুব সহজেই এখান থেকে টাকা ইনকাম করতে পারবেন।

৬। টেলিগ্রাম রেফারেল লিংক (Refarel link) করে

অনলাইনে যারা ইনকাম করে তারা কম বেশি রেফারেল লিংক সম্পর্কে জানেন। সারা বিশ্বে এ রকম অনেক অ্যাপ আছে যেখানে একাউন্ট খুললেই বোনাস পাওয়া যায়। যা অনেক টা অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিং এর মত। বিশেষ করে নতুন অ্যাপ প্রচার করার জন্য রেফারেল ইনকামের সুযোগ করে দেয়।

এখানে আপনার যে রেফারেল কোড টি থাকবে সেটি দিয়ে কেউ যদি অ্যাপ ডাউনলোড করে। তাহলে আপনি সেখান থেকে কমিশন পাবেন। আর এখান থেকে আপনি ইনকাম করতে চাইলে আপনার টেলিগ্রাম চ্যানেলে রেফারেল লিংক শেয়ার করতে হবে। কেননা, যারাই আপনার রেফারেল লিংক ব্যবহার করবে সেখান থেকে আপনি টাকা ইনকাম করতে পারবেন।

শেষকথা

বন্ধুরা, এই ছিল টেলিগ্রাম কি এবং টেলিগ্রাম থেকে ইনকাম করার সহজ উপায় সম্পর্কে বিস্তারিত আলোচনা। আর আমাদের আলোচনায় টেলিগ্রাম কি এবং টেলিগ্রাম থেকে ইনকাম করার সহজ উপায় সমন্ধে জানিয়েছি, আশা করি আপনারা সব কিছু বুঝতে পেরেছেন। আপনাদের যদি কোন মতামত থাকে তাহলে কমেন্ট করে আমাদের জানিয়ে দেবেন।

আপনি আরো পড়তে পারেন, ইউটিউব চ্যানেল থেকে আয় করার উপায়।

Leave A Reply

Your email address will not be published.